top of page
Search

মিলেটের দুটি ডায়েবেটিক ফ্রেন্ডলি স্ন্যাক্সের রেসিপি দিলেন পাপিয়া সান্যাল চৌধুরী...

মিলেটে প্রচুর ফাইবার থাকায় এটা ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য ভীষণ উপকারী। এটা প্রিবায়োটিক হিসেবেও ভাল কাজ করে এবং গাট হেলথ ভাল রাখে। এতে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস রয়েছে, তাই এটা ক্যানসারের মত মারণ রোগ প্রতিরোধ করতেও সক্ষম। মিলেটের দুটি অসাধারণ রেসিপি রইলো আজ...

মিলেট ধোসা


কী কী লাগবে


রাগি আটা ১/২ কাপ, জোয়ার আটা ১/২ কাপ, চালের গুঁড়ো ১/২ কাপ, সুজি ১/২ কাপ, বিউলি ডালের গুঁড়ো ১/২ কাপ, টক দই ১ কাপ, গোটা ধনে ১/২ চামচ, আদা ১ ইঞ্চি, মেথি দানা ১/২ চামচ, শুকনো লঙ্কা ২ টি,

কাঁচা লঙ্কা ১ টি, গোলমরিচ ১/২ চামচ, জল ২.৫ কাপ, নুন পরিমাণ মতো, সাদা তেল পরিমাণ মতো

কিভাবে বানাবেন


প্রথমে একটি বড় পাত্রে রাগি আটা, জোয়ার আটা, চালের গুঁড়ো, সুজি ও বিউলি ডালের গুঁড়ো ভালো করে মিশিয়ে নিন।

এবার দই ফেটিয়ে অল্প জলসহ (১/২ কাপ) আটার মিশ্রণের সাথে মিশিয়ে নিন। বাকি জল মিশিয়ে পাতলা একটি ব্যাটার তৈরি করুন।

আদা, গোটা ধনে, মেথি দানা, শুকনো লঙ্কা, কাঁচালঙ্কা, গোলমরিচ একসাথে বেটে নিন।প্রয়োজনে ২ চামচ জল মেশানো যেতে পারে।

এবার এই পেস্ট এবং নুন আগে বানানো ব্যাটারের সাথে মিশিয়ে ঢেকে ৬-৮ ঘন্টা রেখে দিন। ননস্টিক তাওয়া তে খুব অল্প তেল ছড়িয়ে দিয়ে ওভেন-এর ফ্লেম কমিয়ে একটি শুকনো কাপড় বা ন্যাপকিন দিয়ে তাওয়া মুছে নিতে হবে। এক হাতা ব্যাটার ঢেলে তাওয়া-র উপর ছড়িয়ে দিতে হবে যাতে তাওয়া-র সব জায়গায় ব্যাটার সমভাবে বন্টিত হয় এবং উপরে ও ধারগুলোতে অল্প তেল ছড়িয়ে দিতে হবে। ১-২ মিনিট পর তাওয়া থেকে সাবধানে তুলে নিয়ে গরম গরম চাটনি ও সাম্বার সহযোগে পরিবেশন করতে হবে মিলেট ধোসা।


মিলেট ভেজি কাঠি কাবাব


কী কী লাগবে


কুদো মিলেট ২ চামচ, রাগি মিলেট ২ চামচ, লিটল মিলেট ২ চামচ, রাঙা আলু ২ টি (মাঝারি সাইজের, সেদ্ধ করে নিতে হবে), সবুজ, লাল ও হলুদ ক্যাপসিকাম ১ কাপ, পেঁয়াজ কুচি ১/২ কাপ, ধনেপাতা কুচি ১/২ কাপ, গন্ধরাজ লেবুর জেস্ট ১ টেবিল চামচ, সাদা তেল পরিমাণ মতো, সরষের তেল ১ চামচ, জোয়ান ১/২ চামচ, মৌরি ১/৪ চামচ, আদা বাটা ১ চামচ, বেসন ৪ টেবিল চামচ, রোস্টেড ধনে গুঁড়ো ১/২ চামচ, রোস্টেড জিরে গুঁড়ো ১/২ চামচ, চাট মশালা ১ চামচ, গরম মশলা ১/২ চামচ, বাদাম গুঁড়ো ২ চামচ, কাঠি কয়েকটা, নুন পরিমাণ মতো

কিভাবে বানাবেনঃ


প্রথমে ১ টেবিল চামচ সাদা তেল গরম করে তাতে মৌরি ও জোয়ান ফোড়ন দিয়ে, পেঁয়াজ কুচি ও আদা বাটা দিয়ে একটু ভেজে নিয়ে একে একে তিন রকমের ক্যাপসিকাম, নুন, ধনে গুঁড়ো, জিরে গুঁড়ো, বাদাম গুঁড়ো ও গরম মশালা দিয়ে কষিয়ে নামিয়ে রাখতে হবে।

তিন রকমের মিলেট গরম জলে ২-৩ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে। তারপর মিলেট এর দ্বিগুণ জলসহ প্রেশার কুকারে সেদ্ধ করে নিতে হবে। এবার একটি মলমলের কাপড়ে সেদ্ধ করা মিলেট দিয়ে চিপে অতিরিক্ত জল বার করে নিতে হবে। একটি বড় পাত্রে জল ঝড়ানো মিলেট, সেদ্ধ করা রাঙা আলু, লেবুর জেস্ট ও চাটমশালা মিশিয়ে নিতে হবে। পরিমাণ মতো নুন এই পর্যায়ে মিশিয়ে নিতে হবে। এবার একটি ছোট প্যানে ১ চামচ সরষের তেল দিয়ে বেসন রোস্ট করে নিতে হবে এবং ঐ রোস্টেড বেসন মিলেটের মিশ্রণের সাথে ভালো করে মিশিয়ে আধঘন্টা ফ্রিজে রাখতে হবে।

আধঘন্টা পরে, ঐ মিশ্রণ থেকে বলের সাইজের মতো করে হাতে নিয়ে কাঠিতে কাবাবের আকারে লাগিয়ে হালকা হাতে রোল করে নিতে হবে। প্রয়োজনে হাতে অল্প জল নেওয়া যেতে পারে। এবার গ্রিল প্যানে অথবা ননস্টিক প্যানে অল্প তেল দিয়ে চারিদিকে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে কাঠি কাবাব গুলো কে সেঁকে নিতে হবে।

শেষে গরম গরম স্যালাড, লেবু ও পছন্দ মতো সস সহ পরিবেশন করতে হবে মিলেট ভেজি কাঠি কাবাব।



bottom of page