top of page
Search

রথযাত্রা স্পেশ্যাল জগন্নাথের ছাপ্পান ভোগের পাঁচটি পদ.. রেসিপি দিলেন শম্পা দাস..

রথযাত্রায় জগন্নাথদেব কে নিবেদন করা হয় ছাপ্পান টি বিশেষ ভোগ। তার মধ্যে পাঁচটি ভোগের রেসিপি রইলো আজ... ইচ্ছে হলে আপনিও বানিয়ে ফেলতে পারেন বিশেষ এই পদগুলি...



 থালি খিচড়ী


কী কী লাগবে


১ কাপ গোবিন্দভোগ চাল

১/২ কাপ খোসাসহ মুগ ডাল

১ চা চামচ আদা বাটা

১ বড় চিমটি হিং

১ টেবিল চামচ গরুর ঘি

স্বাদমত নুন

জল ২+১/২ ( আড়াই কাপ ) মাটির হাঁড়িতে করলে আর ৩ কাপ মেটালের হাঁড়িতে করলে

কিভাবে বানাবেন


চাল এবং ডাল একসঙ্গে ধুয়ে নিতে হবে সাদা জল না হওয়া পর্যন্ত ( আগের থেকে ভিজিয়ে রাখার দরকার নেই)

এবার হাঁড়িতে চাল ডাল আদা বাটা হিং নুন ও ঘি দিয়ে উল্লেখ করা জল দিয়ে আঁচে ঢাকনা খুলে বসাতে হবে ।

    জল ফুটে কমে এলে যখন চাল ডাল দেখা যাবে তখন ঢাকা দিয়ে আঁচ একদম কমে রাখতে হবে । 

   সম্পূর্ণ জল শুকিয়ে এলে নামিয়ে নিতে হবে । 

  এই খিচুড়িতে জল থাকে না একদম শুকনো ঝরঝরে হবে 

    উপরে তুলসী পাতা দিয়ে শ্রী জগন্নাথদেবকে নিবেদন করো ।।



 ছেনা তাড়িয়া 


কী লাগবে


১ লিটার গরুর দুধের ছানা

৫০ গ্রাম ক্ষীর

২ টেবিল চামচ ময়দা

৩ টে ছোট এলাচের গুঁড়ো

১/২ চা চামচ মৌরি 

পরিমাণ মত ঘি ভাজবার জন্য 

সিরার জন্য

৩/৪ কাপ চিনি

১+১/৪ কাপ জল


কিভাবে বানাবেন

একটা থালায় ছানা নিয়ে হাতের তালু দিয়ে চেপে চেপে ছানাটা মসৃণ করে নিতে হবে 

   এর মধ্যে ক্ষীর, ময়দা , মৌরি ও এলাচ গুঁড়ো দিয়ে আবার ভালো করে মেখে নিতে হবে । 

   কড়াইতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘি দিয়ে হালকা গরম করতে হবে । 

  মেখে রাখা ছানা হাতে নিয়ে গোল করে গড়ে একটু চেপে চ্যাপ্টা করে মাঝখানে আঙুল দিয়ে গোল গর্ত করে নিতে হবে । গরম ঘি তে সোনালী করে ভাজুন।

   একটা গামলায় সিরার জন্য চিনি ও জল দিয়ে আঁঠালো সিরা বানাতে হবে ( কোন এক তার বা দু তার হবে না ) ।

  উষ্ণ গরম সিরার মধ্যে ভেজে রাখা মিষ্টি দিয়ে এক ঘন্টা অপেক্ষা করলেই তৈরি ছেনা তাড়িয়া । 

  উপরে তুলসী পাতা দিয়ে মহাপ্রভুকে নিবেদন করো ।


জগন্নাথ বল্লভ


কী কী লাগবে

১ কাপ আটা

১/২ কাপ দেশি ঘি

১/২ কাপ চিনি

১/৪ কাপ জল

৪ টা এলাচ , ৪ টি লবঙ্গ, ছোট এক টুকরো জায়ফল গুঁড়ো করে না নেওয়া ।


কিভাবে বানাবেন

কড়াইতে ঘি দিয়ে হালকা গরম হলে আটা দিয়ে সোনালী রঙ হওয়া পর্যন্ত ভাজতে হবে ।

ক্রমাগত নাড়তে হবে , না হলে পুড়ে যাবে ।

আটা ভাজা হলে একটা অন্য পাত্রে নামিয়ে রাখতে হবে ।

এবার একটা অন্য প্যানে চিনি ও জল দিয়ে চিনি গলে যাওয়া পর্যন্ত জ্বাল দিতে হবে , চিনি গলে গেলে গুঁড়ো করে রাখা মশলা দিয়ে আরো একটু জ্বাল দিতে হবে ।

সিরাটা চিটচিটে হলে তার মধ্যে ভেজে রাখা আটা দিয়ে নাড়তে হবে । মিশ্রন সুন্দর মাখো মাখো হয়ে প্যান থেকে ছেড়ে এলে একটা থালায় সামান্য ঘি মাখিয়ে মিশ্রনটা নামিয়ে উপরটা খুন্তি দিয়ে সমান করে নিতে হবে ।

এই অবস্থাতেই ছুড়ি দিয়ে চৌকো শেপে কেটে নিয়ে জমতে দিতে হবে

ঠান্ডা হলে শক্ত হয়ে গেলে কাটা যাবে না ।


জমে গেলে তুলে উপরে তুলসী পাতা দিয়ে মহাপ্রভুকে নিবেদন করতে হবে । জয় জগন্নাথ।


গোটা বেগাইনি মরিচি পানি

কী কী লাগবে

৩ টে ছোট বেগুন

২ টেবিল চামচ ঘি

১/২ চা চামচ গুড়

৬/৭ টে গোলমরিচ

১ টেবিল চামচ মৌরি

১ চা চামচ জিরা

৫/৬ টেবিল চামচ নারকেল কোরা

১ ইঞ্চি টুকরো আদা

১/২ চা চামচ হলুদ

১ চিমটি হিং

পরিমাণ মত নুন


কিভাবে বানাবেন

বেগুন ধুয়ে মুছে বোঁটার দিক আস্ত রেখে সামনের দিক থেকে বোঁটার একটু আগে ক্রস চিহ্নে কেটে নিতে হবে ।

ঘি, গুড়, নুন ও হিং ছাড়া বাকি সব উপকরণ মিহি করে বেটে নিতে হবে ।

এবার এই মশলাতে হিং নুন ও গুড় মিশিয়ে মশলাটা কেটে রাখা বেগুনে ভরে দিতে হবে ।

এবার একটা মাটির বা মেটাল হাঁড়িতে মশলা ভরা বেগুন ঘি ও বাকি মশলাটুকু দিয়ে ১/২ কাপ জল দিয়ে ধিমে আঁচে ঢাকা দিয়ে রান্না করতে হবে ।

বেগুন সুসেদ্ধ হলে ও সুঘ্রাণ বেরোলে নামিয়ে নিতে হবে ।

বাটিতে তরকারি রেখে উপরে তুলসী পাতা দিয়ে জগন্নাথদেবকে পরিবেশন করতে হবে ।



লুনি খুরমা


কী কী লাগবে


১ কাপ আটা

১ চা চামচ জোয়ান

১ + ১/২ টেবিল চামচ ঘি

১/২ চা চামচ নুন

ভাজবার জন্য ঘি


কিভাবে বানাবেন


আটা একটা পাত্রে নিতে হবে জোয়ান হাতের তালুতে রেখে ঘষে নিয়ে আটায় মেশাতে হবে

নুন দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে

ময়ানের জন্য ঘি দিয়ে ভালো করে মেখে নিতে হবে ।

এবার অল্প অল্প করে জল দিয়ে একটা শক্ত মন্ড বানিয়ে নিতে হবে ।

মন্ড থেকে ছোট ছোট লেচি করে দুই হাতের আঙুলের সাহায্যে ছোট ছোট একটু মোটা করে লুচির মত করে গড়তে হবে ।

বেলন চাকি ব্যবহার করা যাবে না ।

একটা ছুরি বা কাঠি দিয়ে ভিতরে একটু ফুঁটো করে দিতে হবে ।

কড়াইতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘি গরম করে খুরমাগুলো সোনালী রঙ হওয়া পর্যন্ত ভেজে তুলে নিতে হবে ।

উপরে তুলসী দিয়ে জগন্নাথ দেবকে পরিবেশন করতে হবে ।

Comments


bottom of page