top of page
Search

লু থেকে বাঁচতে সঙ্গে রাখুন বাড়িতে বানানো শরবত...

জাঁকিয়ে পড়েছে গরম। বাইরে রোদ যেন গায়ে ছ্যাঁকা দিচ্ছে, তার যোগ্য দোসর হয়ে বইছে লু বা গরম হাওয়া। বাড়ির বড়রা তো বটেই, বাচ্চারাও যেন নেতিয়ে পড়ছে গ্রীষ্মের চোখরাঙানি দেখে। এই সময় এমন কিছুই তো দরকার, যা শরীর ও মন দুইই ঠান্ডা করবে। ঘরোয়া উপায়ে তৈরি পাঁচটি শরবতের রেসিপি দিলেন দুষ্টু বিশ্বাস...


রুবি শটস্


কী কী লাগবে


খোসা ছাড়ানো বেদানা ২ টি

পুদিনা পাতা কুচি-- হাফকাপ

চাট মশলা -- ১চা চামচ

সৈন্ধব লবণ/রক সল্ট-- প্রয়োজন মতো

বরফের টুকরো-- ১বাটি

সোডা ওয়াটার --৬০০মি.লি.

সাজানোর জন্য -- ২ টেবিলচামচ বেদানা

কিভাবে বানাবেন:--


বেদানার রস বের করে তা ছেঁকে নিতে হবে।


এবার একটা বড় বাটিতে পুদিনার কুচি, সৈন্ধব লবণ আর বেদানার রস মিশিয়ে ওপর থেকে সোডা ওয়াটার ঢেলে নিতে হবে।


এবার শট্সের গ্লাসে পুদিনা কুচি আর বরফ কুচি দিয়ে ওপর থেকে বেদানার মিশ্রণ দিতে হবে। এতে কয়েকটা বেদানার দানা সাজিয়ে পরিবেশন করুন রুবি

শটস্।


কিউকামবার কুলার


কী কী লাগবে:--


শশা ২টো

পাতিলেবুর রস -- ২টেবিলচামচ

বিটনুন:---১টেবিলচামচ

সাধারণ নুন:-- হাফ চা চামচ

গোলমরিচ গুঁড়ো:-- ১টেবিল চামচ

পুদিনা পাতা:-- ১৫/২০টা

বরফের টুকরো:--- ১বাটি

মিছরির গুঁড়ো:--৩টেবিলচামচ

ঠান্ডা জল:-- ৩কাপ


কিভাবে বানাবেন:---


শশা, পুদিনাপাতা ব্লেন্ড করে নিয়ে ছেঁকে নিতে হবে।


এখন এতে ঠান্ডা জল মিছরির গুঁড়ো, গোলমরিচের গুঁড়ো,বিটনুন,সাধারণ নুন ও পাতিলেবুর রস মিশিয়ে নিন।


সুন্দর গ্লাস বিটনুন ও গোলমরিচের গুঁড়ো তে রিম করে নিয়ে এই কুলার ভরে নিন আর বরফের টুকরো দিয়ে পরিবেশন করুন কিউকামবার কুলার।


সাবুর জলে সাগরা

কী কী লাগবে:--


সাবু ভেজানো জল-- ১লিঃ

গন্ধরাজ লেবু-- ২টো

গন্ধরাজ লেবু পাতা--৫/৬টা

আখের গুড়-- হাফকাপ

পাকা তেঁতুলের পাল্প-- ৩টেবিলচামচ

বিটনুন-- ১টেবিলচামচ

কাঁচা লঙ্কা -- ২/৩টে


কিভাবে বানাবেন:--


সাবু ভিজিয়ে রেখে তার জলটাই এই দেশী মকটেলের প্রধান উপকরণ তাই সাবু ভেজানো জলটা একটু বেশি পরিমাণে লাগবে।


এতে এখন আখের গুড় ভিজিয়ে ফ্রিজে রাখুন একঘন্টা।


এবার বিটলবণ, তেঁতুলের পাল্প আর কাঁচালঙ্কা ও গন্ধরাজলেবুর পাতা ডলে মিশিয়ে নিতে হবে।


সবশেষে গন্ধরাজ লেবুর রস মিশিয়ে ঠান্ডা ঠান্ডা পরিবেশন করুন দেশী মকটেলে সাগরা।


মূলত উপোসের পর সমস্ত মিষ্টি খাবার খেয়ে এই শরবত পান করুন, শরীর ভেতর থেকে ঠান্ডা হবে।


কালবৈশাখী


কী কী লাগবে:--


কাঁচা আম -২টো

পুদিনা পাতা -- ২০/২৫টা

বরফের টুকরো -- ১বাটি

ঠান্ডা জল -- ৪গ্লাস

মিছরি গুঁড়ো--- ৪টেবিলচামচ

কাঁচা লঙ্কা -- ২টো

বিটলবণ-- ২চা চামচ

সাধারণ নুন-- হাফ চা চামচ

লঙ্কার গুঁড়ো -- ১চা চামচ


কিভাবে বানাবেন:--


কাঁচা আম খোসা ছাড়িয়ে টুকরো করে নিয়ে মিক্সিং জারে দিয়ে এতে কাঁচা লঙ্কা, পুদিনাপাতা, মিছরি গুঁড়ো আর অল্প জল দিয়ে ব্লেন্ড করে নিয়ে ছেঁকে নিতে হবে।


এখন এতে ঠান্ডা জল, বিটলবণ, সাধারণ নুন ভালো করে মিশিয়ে পরিবেশন করতে হবে।


একটা প্লেটে লঙ্কাগুঁড়ো আর বিটনুন মিশিয়ে রেখে সুন্দর একটা গ্লাসের মুখে পাতিলেবুর রস মাখিয়ে লঙ্কা-নুনের মিশ্রণে গড়িয়ে অর্থাৎ রিম করে নিয়ে গ্লাসটা বরফের টুকরো ভরে ওপর থেকে আম-পুদিনার মিশ্রণ ঢেলে পরিবেশন করুন কালবৈশাখী।


চাইলে যে কোনো ঘরোয়া পার্টিতে সোডা ওয়াটার অথবা ভডকা মিশিয়ে পরিবেশন করতে পারেন।


বেলের শরবত


কী কী লাগবে


বেল- ১টা, দুধ বা দই- ১/২ কাপ, জল- ৪ কাপ, চিনি- পরিমান মতো।


কিভাবে বানাবেন


যেদিন শরবত বানাবেন তার আগের দিন রাতে, নাহলে অন্তত ১২ ঘণ্টা বেল ভিজিয়ে রাখুন।


জল থেকে তুলে বেলের আঠা ও বীজ ফেলে ভালো করে চটকে ছেঁকে নিন।


দইয়ের সঙ্গে চিনি ও জল মিশিয়ে ভালো করে ঘেঁটে মিশিয়ে নিন। এবার বেলের মধ্যে দই, জল, চিনির মিশ্রণ ঢেলে ভালো করে মিশিয়ে বরফ কুঁচি দিয়ে পরিবেশন করুন।


রেসিপি এবং ছবি সৌজন্যেঃ দুষ্টু বিশ্বাস

Comments


bottom of page