Search

করোনা থেকে বাঁচতে ও বাঁচাতে শরীরী প্রতিরোধ গড়ে তুলুন ভিটামিন B কে আপন করুন - সমীর চট্টোপাধ্যায়

এই পৃথিবীতে এই মুহূর্তে যে কজন মানুষ বেঁচে আছেন, তাঁরা প্রায় প্রত্যেকেই নিজেকে নতুনভাবে চিনলেন যেন। এমন অভিজ্ঞতা এই প্রথম। এই প্রথম বুঝতে পারলেন, শরীরে জোঝার মত শক্তি না থাকলে শরীর যেকোনও মুহূর্তে বিদ্রোহ ঘোষণা করতে পারে। শিকার হতে পারে বড়সড় বিপর্যয়ের।


অতএব আপনার শরীরকে আপনিই পারেন, যুদ্ধক্ষেত্রের বিজয়ী সৈনিক তৈরি করতে। প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে। প্রত্যেক মানুষের শরীরেই রোগ প্রতিরোধ করার সহজাত ক্ষমতা থাকে। কিন্তু বিভিন্ন কারণে যেমন দূষণ, ভেজাল খাবার, অপুষ্টি অনিয়মিত জীবনযাপনের ফলে এই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যেতে থাকে। ফলে সামান্য রোগের কারনেই কাতর হয়ে যেতে হয়। যেখানে করোনার মত ভাইরাসের আক্রমণ থেকে তো বাঁচার কোনও উপায়ই থাকে না। তাই আগে দরকার শরীরের প্রতিরোধ গড়ে তোলা। আর তার জন্য যার দ্বারস্থ হওয়া আগে জরুরি তা হল, ভিটামিন বি-এর। যারা জানেন, তাঁরা বুঝতে পারছেন, আর যারা জানেন না, তাঁরা নিশ্চয়ই জানার জন্য উৎসুক! ‘রোজকার অনন্যা’র সম্পাদক ও প্রকাশক তাঁদের পাঠককুলকে নিরাপত্তার বেস্টনিতে আটকে রাখতে চান। তাই শরীরী প্রতিরোধ গড়ে তুলতে এমনই একটা লেখার বরাদ দিয়েছেন। এ কদিন বাড়িতে বসে পড়াশুনো করা আর বন্ধুবান্ধব, বিশেষত ডক্টর বন্ধু, বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলা ছাড়া আর কী বা করার ছিল! যা জেনেছি, বুঝেছি, তাই-ই আপনাদের জানাতে চাইছি। উদ্দেশ্য একটাই, আপনারাও ভালো থাকুন, আমরাও ভালো থাকি। তবে আলোচনার শুরুতে একটা কথা বলতে চাই, এই আলোচনার শেষে আপনারা কেউ ভেবে নেবেন না, এটাই চিকিৎসার পথ বা এগুলো মানলে রোগ আপনাকে অ্যাটাক করবে না! সে হয়ত করবে। চিকিৎসার ক্ষেত্রে চিকিৎসক আছেন। তবে এগুলো যদি মেনে খাওয়াদাওয়াটা করতে পারেন, তাহলে যেকোনও রোগের আক্রমণই আপনাকে খুব সহজে কাবু করতে পারবে না।

চলুন, শুরুতে আগে আমরা জেনেনি, ভিটামিন বি কি? কেন তা দরকার আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য? আমাদের শরীরের কোষের স্বাস্থ্যের উন্নয়ন করে। আমাদের শরীরের সঠিক ভাবে বেড়ে ওঠার জন্য ভিটামিন অত‍্যন্ত‍্ জরুরি। এদের মধ্যে ভিটামিন বি খুব কার্যকর। ভিটামিন বি এর মধ্যে আবার ৮ টি ভাগ আছে। যেমন ভিটামিন বি ১, ভিটামিন বি ২, ভিটামিন বি ৩, ভিটামিন বি ৪, ভিটামিন বি ৬, ভিটামিন বি ৭, ভিটামিন বি ৮, ভিটামিন বি ১২। এই সব ভিটামিনগুলিকে একসাথে ভিটামিন বি কমপ্লেক্স বলে।



ভিটামিন বি-এর উৎস

ভিটামিন বি আমাদের শরীরের জন্য অতন্ত্য জরুরি। মাছ, মুরগির মাংস, পাঠার মাংস, গম ইত্যাদি খাবারে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন বি ১ এবং ভিটামিন বি ২ থাকে। ব্রকোলি, মাশরুম, দই, ভুট্টা, ফুলকপি, আলু, তরমুজ, বাঁধাকপি, কলা, বিভিন্ন ধরণের বেরি ফল ইত্যাদি। সবুজ রঙের সবজি, বীটরুট, দুধ এবং দুধের থেকে যে খাবার হয় যেমন ছানা, চীজেও প্রচুর ভিটামিন বি থাকে।

ভিটামিন বি এর ফল পাওয়ার জন্য আমরা সাধারনভাবে যে খাবারের উল্লেখ করেছি, তা খাওয়াই যথেষ্ট। তবে কারোর কারোর শরীরের গঠন অনুযায়ী প্রচুর পরিমানের ভিটামিন দরকার পরে। অনেক সময় খাবারে সেই ভিটামিন বি-এর পরিমান কম পরে যায়। তখন অনেকেই ভিটামিনের সাপ্লিমেন্ট খেয়ে থাকেন। ভিটামিন সাপ্লিমেন্ট কিন্তু সব সময় চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই খাওয়া উচিত। যদি একেবারেই আমাদের শরীরে ভিটামিনের ভাটা পরে তাহলেই আমাদের উচিত সাপ্লিমেন্ট খাওয়া। আমাদের উচিত সাধারণ খাবার খেয়ে ভিটামিন বি-এর প্রয়োজন মেটানো।

ভিটামিন বি-এর অভাবে যেসব রোগ হয়

আগেই বলেছি, ভিটামিন বি কিন্তু কোনও একক ভিটামিন নয়, এটি একটি গ্রুপ ভিটামিন। এই গ্রুপে রয়েছে ৮টি ভিটামিন যেগুলোকে একত্রে ভিটামিন বি কমপ্লেক্স বলা হয়। এবার একটু বিশদে বলার চেষ্টা করবো এই ৮টি ভিটামিনের মধ্যে কোনটির অভাবে কি কি রোগ হয়।

* ভিটামিন বি১ বা থায়ামিন-এর অভাবে যেসব রোগ

  • বেরিবেরি রোগে আক্রান্ত হওয়া

  • কার্ডিওভাসকুলার বা হৃৎযন্ত্রের রোগে আক্রান্ত

  • নিঃশ্বাস ছোট হয়ে যাওয়া।বড় করে নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া

  • পা ঘামা

  • ওজন কমে যাওয়া

  • শর্ট টাইম মেমোরি লস

* ভিটামিন বি২ বা রিবোফ্লেবিন-এর অভাবে যেসব রোগ

  • কৌণিক চাইলাইটিসে আক্রান্ত হওয়া, মুখের কোণে ফাটল ধরা

  • ঠোঁট লাল হয়ে যাওয়া

  • ত্বক শুষ্ক হয়ে যাওয়া

  • শীত ছাড়াও অর্থাৎ যে কোনও সিজনেই ঠোঁট ফাটা

  • মুখের ভেতর প্রদাহ, বিশেষত মুখের আস্তরণের প্রদাহ

  • মুখের আলসার

  • জিহ্বার প্রদাহ

  • গলা ব্যথা দেখা দেওয়া

  • স্ক্রোটাল ডার্মাটাইটিস

  • আয়রণের অভাবজনিত রক্তস্বল্পতা দেখা দেওয়া

  • উজ্জ্বল আলোতে চোখের সমস্যা

  • চোখের চুলকানি

  • কখনও কখনও চোখের রক্তক্ষরণ

* ভিটামিন বি৩ বা নায়াসিনের এর অভাবে যেসব রোগ

  • চুল উঠা বা চুল পড়া

  • বিভিন্ন রকমের চর্মরোগ দেখা দেওয়া

  • ত্বকের বিভিন্ন স্থান ফুলে যাওয়া

  • জিহ্বার উপরে বা নিচে ফুলে ওঠা

  • অনিদ্রায় ভোগা

  • ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়া

  • শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ দুর্বল হয়ে যাওয়া

  • মানসিকভাবে সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগা

  • জীবনযাপনে বিশৃঙ্খলা দেখা দেওয়া

  • হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়া