top of page
Search

দই দিয়ে রান্না, রান্নায় মিষ্টি দই এর ব্যবহার...

সারাবছর তেমনভাবে না খেলেও গরমে দই খাওয়ার চল প্রায় সব বাড়িতেই রয়েছে। খাওয়ার পাতে একবাটি দই হোক অথবা বিকেলে তেঁতে পুড়ে বাড়ি ফিরে একটু ঘোল কিম্বা লস্যি, পেট ঠান্ডা রাখতে দইয়ের ফলাহার হোক কি ওজন কমাতে দই তে ভেজানো ওভারনাইট ওটস... গরমকালে বাঙালি বাড়ির রোজকার খাবারে দইয়ের ব্যবহার সর্বাধিক। চলুন দেখে নিই এসবের পাশাপাশি রোজকার রান্নায় কিভাবে দইয়ের ব্যবহার করা যেতে পারে...

কভারের ছবি: স্বাগতা সাহা


দই দিয়ে রান্না...


মখমলি দই পনির


কী কী লাগবে



পনির, টক দই, সাদা সর্ষে, পোস্ত, কাঁচা লঙ্কা, সাদা তেল, চিনি, কাজু বাদাম, নুন।


কিভাবে বানাবেন



পনির ছোটো ছোটো করে কেটে একটু নুন ও জল দিয়ে গরম করে জল‌ ঝরিয়ে নিন। পরিমাণ মতো সর্ষে, পোস্ত, কাজুবাদাম পেস্ট করে তার সাথে টক দই ফেটিয়ে রাখুন।


ননস্টিক প্যানে তেল গরম করে পনিরগুলো লাল করে ভেজে তুলে নিন। ঐ তেলে সরষে পোস্ত কাজুবাদাম দই এর মিশ্রন দিয়ে অল্প নেড়ে ভাজা পনির, নুন, চিনি মেশান। ৫ মিনিট অল্প আঁচে বসিয়ে ঢেকে রান্না করলেই তৈরী। পোলাও বা পরোটার সাথে পরিবেশন করুন।

মিস্টি দই দিয়ে মোচা


কী কী লাগবে


কুচোনো মোচা, মিষ্টি দই, কুচোনো টমেটো, আদা বাটা, নুন, হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কা গুঁড়ো, লেবুর রস, চিনি, ডুমো করে কাটা আলু, নারকেল কোরা, সরষের তেল, ঘি, গরমমশলা গুঁড়ো।

ফোড়ন এর জন্য: তেজ পাতা, সাদা জিরে, শুকনো লঙ্কা, গোটা গরম মশলা।


কিভাবে বানাবেন

কুচোনো মোচা, নুন, লেবুর রস ও পরিমাণ মতো জল দিয়ে সেদ্ধ করে জল ঝরিয়ে রাখুন। তেল গরম করে টুকরো করা আলু আর নারকেল কোরা আলাদা আলাদা ভাবে ভেজে তুলে নিন। ঐ তেলে ফোড়নের সবকিছু দিয়ে একে একে আদা বাটা, টমেটো কুচি, নুন, চিনি, হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কা গুঁড়ো একসাথে কষুন। এবার সেদ্ধ মোচা, মিস্টি দই, ভাজা আলু আর কোরানো নারকেল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ঘি গরম মশলা গুঁড়ো ছড়িয়ে নামিয়ে পরিবেশন করুন।


দই মুরগী


কী কী লাগবে


৫০০ গ্রাম মুরগীর মাংস, টক দই ২০০ গ্রাম, সামান্য কারিপাতা, পেঁয়াজ মাঝারি সাইজের ৩টে, একটা মাঝারি সাইজের টমেটো, ৭-৮ কোয়া রসুন, কাঁচা লঙ্কা, ফোড়ন এর জন্য ১টা শুকনো লঙ্কা, গোটা গরম মসলা, গোলমরিচ, তেজপাতা, পরিমাণ মতো নুন, হলুদ, লঙ্কা গুঁড়ো, সর্ষের তেল, চিনি, জিরে, ধনে।


কিভাবে বানাবেন


প্রথমে মুরগীর মাংস ধুয়ে নুন হলুদ লঙ্কা গুঁড়ো দিয়ে মেখে নিন। টক দই ভালো করে ফেটিয়ে রাখুন। দুটো পেঁয়াজ ও টমেটো কুচি করে কেটে রাখুন। অন্য দিকে একটা পেঁয়াজ, আদা, রসুন, জিরে ভালো করে পেষ্ট করে নিন। এবার গ্যাস জ্বালিয়ে একটা কড়াই বসিয়ে গরম হলে তেল দিন। তেল গরম হলে তেজপাতা শুকনো লঙ্কা গোটা গরম মশলা ও গোলমরিচ ফোড়ন দিয়ে কারিপাতা পেঁয়াজ ও টমেটো কুচি দিয়ে কষে মশলার পেষ্ট টা দিয়ে পরিমাণ মতো নুন, হলুদ, লঙ্কা গুঁড়ো ও চিনি দিয়ে ভালো করে কষুন। মশলা থেকে তেল ছাড়লে চিকেন দিয়ে ভালো করে নেড়ে ঢেকে দিন। মাঝে মাঝেই নাড়তে হবে, ৫ মিনিট পরে ঢাকনা খুলে ফেটানো দই ও কাঁচালঙ্কা চেরা দিয়ে একটু নেড়ে ঢেকে রাখুন। চিকেন সেদ্ধ হলে উপর থেকে সামান্য গরম মশলা গুঁড়ো  ছড়িয়ে একটা পাত্রে নামিয়ে গরম গরম ভাত বা পোলাও এর সাথে পরিবেশন করুন।


বেগুন বাহার 


কী কী লাগবে


বেগুন একটা, টক দই দুই কাপ, পরিমাণ মতো নুন, হলুদ, লঙ্কা গুঁড়ো, চিনি, সর্ষের তেল, সাদা তেল, কাসৌরি মেথি, ধনেপাতা, ভাজা জিরে গুঁড়ো, কালো জিরে, শুকনো লঙ্কা, কাঁচা লঙ্কা, আদা জিরে বাটা ২ চা চামচ, টমেটো কুচি।


কিভাবে বানাবেন


বেগুন ভালো করে ধুয়ে লম্বা করে কেটে নুন, হলুদ, লঙ্কা গুঁড়ো ও চিনি দিয়ে ভালো করে মেখে রাখতে হবে। অন্য দিকে টক দই এর মধ্যে কসৌরী মেথি গুঁড়ো, ধনেপাতা কুচি, জিরে গুঁড়ো দিয়ে দই এর মিশ্রন বানিয়ে রাখতে হবে। এবার গ্যাস জ্বেলে কড়াই বসিয়ে গরম হলে সাদা তেল দিয়ে ভালো করে বেগুন ভাজতে হবে। ভাজা হলে একটা পাত্রে নামিয়ে রাখতে হবে। এবার কড়াই তে সরষের তেল দিয়ে গরম হলে শুকনো লঙ্কা ও কালো জিরে ফোড়ন দিতে হবে। এবার টমেটো কুচি দিয়ে ভালো করে নেড়ে যেতে হবে। মশলার পেস্ট দিয়ে পরিমাণ মতো নুন, হলুদ, লঙ্কা গুঁড়ো দিয়ে একটু কষে সামান্য জল দিয়ে ভাজা বেগুন দিয়ে ডেকে রাখতে হবে। মিনিট ৩ পরে ঢাকনা খুলে দেখতে হবে, মশলা বেগুনের গায়ে মাখো মাখো হলে একটা পাত্রে নামিয়ে উপর থেকে দই এর মিশ্রন মিশিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন বেগুন বাহার।


রেসিপি এবং ছবি সৌজন্যেঃ সঞ্চিতা দাস

অনুলিখন সুস্মিতা মিত্র

留言


bottom of page