top of page
Search

টিবিজেড (TBZ)-এর আকর্ষক স্টোর নতুনভাবে ফিরে এল স্বমহিমায়,কলকাতার কাঁকুড়গাছিতে।

উদ্বোধনে শহরে এলেন বলিউড অভিনেত্রী সারা আলি খান।

উদ্ভাবনী ডিজাইন ও গুণমানের প্রতীক, অলঙ্কারের অহংকার টিবিজেড অর্থাৎ ত্রিভোবনদাস ভীমজি জাভেরি সুপরিচিত। এতো একটা দুটো বছর নয়, ১৫৮ টি বছর ধরে অলঙ্কারের জগতে এই সুনাম বহন করে আসছে। নামি দামি, প্রতিটি মানুষ এই ব্র্যান্ডকে আপন করে নিয়েছেন। তাইতো বলিউড-ই অভিনেত্রী সারা আলি খান ছুটে এসেছেন কাঁকুড়গাছির এই স্টোরের নতুন করে উদ্বোধন করতে। ২৫ মে ২০২৩ সেই অর্থে উত্তর কলকাতা, কাঁকুড়গাছি অঞ্চলের মানুষের কাছে খুব শুভ দিন। তাঁদের কাছে আবার ফিরে আসছে তাঁদের ভালোলাগা ব্র্যান্ড টিবিজেডের শোরুম। টিবিজেড-এর চিফ মার্কেটিং অফিসার অভিষেক মালো এই শুভ মুহূর্তে জানান, এই শোরুমের দ্বার উদ্ঘাটন প্রমাণ করে টিবিজেড-এর চাহিদা ও তার বিস্তার অব্যাহত। সত্যি তো এই সংস্থা তো এখন আর বিশেষ কোনও অঞ্চলের সম্পদ নয়।


সব জায়গার, সবখানের। ভারতের পূর্ব এবং উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের মানুষের ভালো গয়নার যে চাহিদা তা এবার একশ শতাংশ মিটবে, সেই চেষ্টাই চালিয়ে যাচ্ছে নিরন্তর। সারা আলি খান এখানে এসে এই শোরুম উদ্বোধন করতে গিয়ে আপ্লুত হয়ে পড়েন। তিনি কথায় কথায় বলেন, আমি খুব আনন্দিত। আনন্দ তো পাওয়ারই কথা। কারণ আর পাঁচটা বাঙালির সারাও বিশ্বাস করেন, গয়নার জগতে কালজয়ী কারুকাজ, ডিজাইনের আঁতুড় ঘর এই টিবিজেড। তিনি সত্যি রোমাঞ্চিত, টিবিজেডের সূক্ষ্ম গয়না সংগ্রহের প্রথম হাতের সাক্ষি হতে পেরে।

সত্যিই তো, ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ ব্র্যান্ড হিসেবে টিবিজেড আত্মনির্ভরশীলতা ও কারুশিল্পের প্রতিনিধিত্ব করে। অলঙ্কার প্রেমীদের কাছে টিবিজেডের অত্যাধুনিক সম্ভার সহজে পৌঁছে যাক, সে চেষ্টায় টিবিজেড সর্বদা সচেষ্ট।

টিবিজেড ট্রেন্ড সেটার। হীরের গয়না ও সোনার গয়নাতে দিগন্তকারী বিপ্লব এনেছে। শুধু সৌন্দর্যের অলংকারই নয়, পেশাদার কাজেও ও তার পারিপার্শ্বিক পরিবেশে, কর্পোরেটের উচ্চমানের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে এদের গয়না এক অন্যতম নজির সৃষ্টি করেছে। টিবিজেডের অলঙ্কার মানেই আধুনিক ও ঐতিহ্যের মেলবন্ধন।

তাঁরা সব সময় গ্রাহকের স্বাদ ও ইচ্ছেকেই প্রাধান্য দিয়ে এসেছে। তাইতো আজ এই অনুষ্ঠানে এতো সাড়া। আবেগে মথিত উদ্বোধক সারাও।

টিবিজেডের গয়না প্রকৃত অর্থেই, আপনার প্রিয়, প্রেয়সীর সেরা সুন্দরের প্রভা... যার মুগ্ধতে আপনি যেন বলে ওঠেন, ‘ওগো সুন্দরী! তব তনু-ভরি লাবণ্য, / তব চঞ্চলা অঙ্গে লহরিত সুষমায় লীলায়িত হিরণ্য। / আজ ত্রিদিবের অপ্সরী হয়ে আসিয়াছ তুমি, / মম ফুটন্ত-প্রেমের কোমল কুসুম চুমি.../ করো গো মোরে চির-ধন্য।।



Comments


bottom of page